মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:০২ অপরাহ্ন

অন্ত ‘অ’ এর উচ্চারণ

(i) বাংলা ভাষায় শব্দের শেষে ব্যঞ্জনের সাথে যুক্ত অকার অনেক সময় উচ্চারিত হয় না। সেক্ষেত্রে শেষ বর্ণটি হলন্ত রূপে উচ্চারিত হয়। এই উচ্চারণ প্রবণতা বাঙালির স্বভাবিক বৈশিষ্ট্যের মধ্যে পড়ে।

উদাহরণ : ফল, জল্, তল, বর, ভাত, আপন, গগন, ধান, বাণ, অক্ষর, আঘাত, সাগর, ইতর, ইলিশ, গান, নাম, চাল, ঘাট ইত্যাদি। তবে, শব্দের শেষে অ লোপ প্রাপ্ত এসব শব্দে গান ও কবিতায় (গীত ও আবৃত্ত হওয়ার সময়) কখনো কখনো অ লোপ পায় না। যেমন, রবীন্দ্রনাথের গানে আছে : শায়ন গগন ঘোর ঘনঘটা।

(ii) বাংলায় কিছু বিশেষণ পদের শেষে অ-কার সাধারণত ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হয়।
উদাহরণ : ছোট (ছোটো), ভাল (ভালো), তত (ততো), খাট (খাটো)।

(iii) আন প্রত্যয়ান্ত শব্দের শেষের অ ও-কারের মতো উচ্চারিত হয়।
উদাহরণ : পাঠান (পাঠানো), আনান (আনানো), জানান (জানানো), শেখান (শেখানো)।

(iv) সংখ্যাবাচক শব্দের শেষের অ ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হয়।
উদাহরণ : বার (বারো), তের (ত্যারো), পরেন (পোনেরো), সতের (সতেরো), আঠার (আঠারো)।

(v) ত, ইত, তর, তম, ঈয়, অনীয়, প্রত্যয়ান্ত বিশেষণ পদের শেষের অ ও-কারের মতো উচ্চারিত হয়।
উদাহরণ : গত (গতো), অতীত (অতিতো), পুলকিত (পুলোকিতো), ক্ষুদ্রতর (খুদ্রোতরো), বৃহত্তম (বৃহত্তমো), পানীয় (পানিও) ইত্যাদি।

(vi) দ্বিরুক্ত শব্দ ও অনুকার শব্দের শেষে অ ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হয়।
উদাহরণ : পড়-পড় (পড়ো-পড়ো), কল-কল (কলো-কলো) ইত্যাদি।

(vii) ই-কার ও এ-কারের পর য় থাকলে সেই ‘য’ এর অ-কার ও-কারের মতো উচ্চারিত হয়।
উদাহরণ : দেয় (দেয়ো) পেয় (পেয়ো)
বরণীয় (বরোণীয়ো) প্রিয় (প্রিয়ো)
তুলনীয় (তুলোনিয়ো) অদেয় (অদেয়ো)

ব্যতিক্রম : তবে ই বা এ-কারের স্থানে অ-কার থাকলে ‘য়’ এর ‘অ’ বিলুপ্ত হয় এবং হসন্তের মতো উচ্চারিত হয়।
খা (খায়্), নয় (নয়্) জয় (জয়্), বিদায় (বিদায়্) ইত্যাদি।

(viii) বিশেষ্য পদের শেষে ‘হ’ এবং বিশেষণ পদের শেষে ‘ঢ়’ থাকলে অন্ত-অ ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হবে।
গাঢ় (গাঢ়ো, গাঢ়হো উচ্চারিত হয়) বিবাহ (বিবাহো), মোহ (মোহো), কলহ (কলোহো) ইত্যাদি।

(ix) শব্দের অন্তক্ষরে সংযুক্ত ব্যঞ্জনবর্ণ থাকলে অন্ত অ ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হয়। চিহ্ন (চিনহো), যত্র (জতত্রো), তএ (তত্ত্রো), ধর্ম (ধরমো), গঞ্জ (গনজো), ঐতিহ্য (ওইতিজঝো), সূর্য (র্শুজো), স্বাস্থ্য (শাস্থো), অন্ধ (অন্ধো)।

(x) শব্দের শেষে অ-এর আগে ং (অনুস্বার) এবং ঃ( বিসগর্) থাকলে শেষের অ ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হবে।
অংশ (অংশো), কংশ (কংশো), হংস (হংসো), দুঃখ (দুক্খো) ইত্যাদি।

(xi) শব্দের শেষের অ-এর আগে ঐ, ঔ এবং ঋ-কার থাকলে অন্ত অ-কার ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হয়।
বৈধ (বোইধো), শৈব (শোইব) কৃশ (কৃশো), পৌর (পোউরো) ইত্যাদি।

(xii) তম, তর প্রত্যয়যুক্ত বিশেষণ পদের শেষের অ-কার ও-কার হিসেবে উচ্চারিত হয়। উচ্চতর (উচ্চোতরো), অন্যতম (ওন্যনোতম), অধিকতম (ওধিকতমো), বৃহত্তর (বৃহত্তরো), উচ্চতম (উচ্চোতমো) ইত্যাদি।


পোস্টটি শেয়ার করুন...

© BengaliGrammar.Com
Maintenance by BengaliGrammar.Com